১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং, ৩ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম:
নরসিংদীতে নিত্যপ্রয়োজনীয় বাজার দর স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসকের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত মাধবদী স্বর্ন শিল্পী সমিতির উদ্যোগে ২৭ তম বিশ্বকর্মা পূজা অনুষ্ঠিত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারদর নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসন নরসিংদীর ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত নরসিংদীতে ডিবি পুলিশ কর্তৃক অস্ত্র সহ সন্ত্রাসী সুমন গ্রেফতার আইনজীবী শওকত আলী পাঠানের মৃত্যুতে সংসদ সদস্য জহিরুল হক ভূইয়া মোহনের শোক প্রকাশ

নরসিংদীর মাধবদীতে চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

  নরসিংদীর সংবাদ

সুমন পাল, মাধবদী(নরসিংদী)প্রতিনিধিঃ

আজ ১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় মাধবদী প্রেসক্লাব কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মাধবদীবাজারের ব্যবসায়ী মানিক চন্দ্র কর্মকার। মাধবদী থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুদ রানা ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনসহ কতিপয় চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে এ সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, নরসিংদী-মদনগঞ্জ সাবেক রেলওয়ের সম্পত্তির লীজ পজিশন চুক্তিপত্র দলিল মূলে এম.এ শাহিন মাহমুদ বাবুল, পিতা: এম.এ. হান্নান ও মামুন, পিতা: মিজানুর রহমান গংদের হইতে ১১.৮০ শতাংশ সম্পত্তি খরিদ করে ১০/১২ বছর যাবৎ ভোগ দখল করে আসছি। ইতিমধ্যে গত ২৮/০৮/২০২০ইং তারিখে জমিতে ঘর নির্মান করতে গেলে ভূমি সন্ত্রাসী মজলিশ প্রধান, পিতা: আঃ গফুর, আল-আমিন, মহিষাশুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল, উভয় পিতা: মজলিশ প্রধান, মজিদ, পিতা: চাঁন মিয়া, সর্ব সাং আটপাইকা, মাধবদী থানা ছাত্র লীগের সভাপতি মাসুদ রানা, সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বাধা প্রদান করে। পরবর্তীতে এ বিষয়ে আমি ইউপি চেয়ারম্যান ডা. এনামুল হক শাহিন ও মাধবদী থানার সহযোগিতায় শান্তিপূর্ণভাবে কাজ করে আসছিলাম। ইতিমধ্যে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ডা. এনামুল হক শাহিন তার মাধবদী কার্যালয়ে মানিক চন্দ্র কর্মকার এবং ছাত্রলীগ সভাপতি মাসুদ রানা ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনকেও ডেকে আনেন। এসময় ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুদ রানা ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন একটি ভূয়া দলিল দেখিয়ে বলে ৬শতাংশ জমি ছেড়ে দিতে হবে অথবা ৬০ লক্ষ টাকা দিতে হবে, না হলে কাজ বন্ধ থাকবে। আর যদি এই জমির উপর কাজ চালিয়ে যাস তাহলে তোকে সহ তর পরিবারকে মেরে ফেলবো। মানিক চন্দ্র কর্মকার চাঁদাবাজ ছাত্রলীগ সভাপতি মাসুদ রানা ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন ও মজলিশ প্রধান গংদের ভয়ে তার দখলীয় সম্পত্তিতে কাজ বন্ধ রেখে মানবেতর জীবন যাপন করছি।
মানিক চন্দ্র কর্মকার আরো বলেন, যেকোনো মুহূর্তে ছাত্রলীগের দুই নেতার ও মজলিশ প্রধান গং হামলা করে আমার ক্ষতিসাধন করতে পারে। তিনি এব্যাপারে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে