০৮ আগস্ট ২০২০ ইং, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম:
নরসিংদীতে কিশোরীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে শিবপুর মডেল থানা পুলিশ বাংলাদেশ পুলিশের অ্যাডিশনাল আইজিপি মাহবুব হোসেন সংক্ষিপ্ত সফরে নরসিংদীতে মাধবদী প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে মাধবদী থানার অফিসার ইনচার্জের মতবিনিময় ক্রসফায়ারের ভয়ে ২৩ মাস কক্সবাজারের সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা কারাগারে… নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পৃথক পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও গাঁজাসহ গ্রেফতার ৫

মসজিদের জমি বিরোধের জের ধরে মাধবদীর রংপুর ফোরকানিয়া মাদ্রাসার শতাধিক ছাত্রছাত্রীর লেখাপড়া বন্ধ।

  নরসিংদীর সংবাদ

সুমন পাল, মাধবদী নরসিংদী প্রতিনিধি –

মাধবদী থানার নুরালাপুর ইউনিয়নের রংপুর বাজার জামে মসজিদ ও মাদ্রাসার উন্নয়ন মূলক কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উভয় পক্ষই পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেন একে অপরের বিরুদ্ধে।

মাদ্রাসার ক্যাশিয়ার তারিক মোল্লা সাংবাদিকদের বলেন, অ্যাডভোকেট দেলোয়ার ও তার লোকজন রংপুর বাজার জামে মসজিদ ও মাদ্রাসার উন্নয়ন মূলক কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ার পাশাপাশি এলাকার মুসুল্লিদের নামাজের ক্ষতি হচ্ছে। তারা মামলা-হামলার হুমকি দিয়ে এলাকাবাসী’কে আতঙ্কে রেখেছে। তিনি বলেন, আমার নামে আট লক্ষ চৌরাশি হাজার টাকার মিথ্যা মামলা দিয়েছে। আমার দাবী হলো মসজিদ ও মাদ্রাসার স্বাভাবিক পরিবেশ সৃষ্টি করে উন্নয়ন মূলক কাজ শুরু করা হোক।

অভিযোগের সত্যতা সম্পর্কে জানতে চাইলে, রোমান বলেন, মসজিদের জায়গাটা আমাদের বাপ-দাদার। তারা ওয়াকফা করে দিয়েছেন দুই শতাংশ। পরে আমার ভাই মৃত ওসমান আরো চার শতাংশ জায়গা ওয়াকফা করে দিয়েছেন। বাকী জায়গা এখানে আমাদের। আমার চাচা আলী আকবর ও চাচাত ভাই ফিরোজেরও জায়গা আছে এখানে। তাদের অনুমতি ছাড়াই কিভাবে মসজিদ, মাদ্রাসা করবে মসজিদ কমিটি (?) তাই আমরা বলেছি সবাই কে নিয়ে সঠিক ভাবে মসজিদ ও মাদ্রাসা করুন।

আলী আকবর বলেন, মসজিদের হুজুর সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন বলে তাকে বিদায় করে দিতে চাইলে তিনি নিজ থেকেই চলে যান। মসজিদের জায়গা নিয়ে কোন সমস্যা নাই।

রংপুর গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ ইছুব মোল্লা ও হাবিবুর রহমান বলেন, অ্যাডভোকেট দেলোয়ার ও তার লোকজন আমাদেরকে মসজিদে আসতে বাধা প্রদান করেন। আমরা চাই এ সমস্যাটার সুষ্ঠু সমাধান হোক।

এই বিরোধ কে কেন্দ্র করে রংপুর ফোরকানিয়া মাদ্রাসার ৯৩ জন ছাত্রছাত্রীর লেখা পড়া বন্ধ রয়েছে বলে অভিযোগ করেছে মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণির দুই ছাত্র আশিক মোল্লা ও এনামূল মোল্লা। তারা বলেন, বিরোধের কারণে আমাদের লেখা পড়া দীর্ঘ দিন যাবৎ বন্ধ রয়েছে । আমরা চাই আবার আমাদের লেখা পড়া চালু হোক আমাদের মাদ্রাসায়।

অভিযোগের বিষয়টি জানতে মাধবদী থানার এস আই সুবল চন্দ্র পাল কে মোবাইলে কল দিলে তিনি জানান, দুই পক্ষই অভিযোগ দায়ের করেছে। বিষয়টি তদন্তনাধীন আছে, সত্য-মিথ্যা যাচাই সাপেক্ষে যথাযথ আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

মসজিদ/মাদ্রাসার নামে ওয়াকফাকৃত সম্পত্তিতে জবর দখল পূর্বক বাধা প্রদানের বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান, নরসিংদী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও মাধবদী থানায় অভিযোগ দায়ের করেন আলহাজ্ব খন্দকার মোঃ সেলিম।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে